খেলাধুলা নিয়ে বক্তব্য। খেলাধুলার ইতিহাস

খেলাধুলা নিয়ে বক্তব্য

খেলাধুলা নিয়ে বক্তব্য । খেলাধুলার গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা । 

 

খেলাধুলা করা শরীরচর্চা ও আনন্দ লাভের বড়ো একটি মাধ্যম । সুন্দর ও সুস্থ জীবন গঠনে খেলাধুলার ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ । ব্যক্তি জীবন ,পারিবারিক ও সামাজিক জীবন , এমনকি জাতীয় জীবনে সফলতা লাভের পেছনে কাজ করে সুস্থ ও সুঠাম দেহ ।

 

আর এই সুস্থ দেহ গঠনের জন্য শরীরচর্চা বা খেলাধুলা অপরিহার্য । দেশব্যাপী অনুষ্ঠিত হয় বিভিন্ন রকম খেলাধুলা । দেওয়া হয় ছোট-বড় অনেক রকম পুরস্কার । এতে মানুষের আগ্রহ এবং ভালোবাসা ও কম নয় । লক্ষ্য করা যায় মানুষের উপচে পড়া ভিড় । আপনারা যদি সে খেলাধুলায় শুধু মাত্র দর্শক হয়ে থাকেন তাহলে তো খেলা উপভোগ ছাড়া তেমন কিছুই করার নেই । খেলা উপভোগ করবেন, খেলোয়াড়দের নিয়ে বকবক আর বাদাম চানাচুর খাবেন গ্রো গ্রাসে খাবেন এইতো ।

 

আর আপনারা যদি কেউ সেই অনুষ্ঠানে অতিথি হয়ে উপস্থিত হন তাহলে অবশ্যই আপনাদের উপস্থিত বক্তৃতা করতে হবে । আর সেই বক্তৃতা গুলো কেমন হবে তার একটা ধারণা এখানে দিচ্ছি। এই লেখাটি অনুসরণ করে কিংবা লেখাটি পড়ে নিজের মতো করে বক্তব্য দিলে আশা করি আপনারা প্রশংসিত হবেন ইনশাআল্লাহু ।

খেলাধুলা নিয়ে বক্তব্য 

অনুষ্ঠানে বক্তব্যের প্রথম ধাপ:

 

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহ ৷ ……….. ( শূন্য স্থানে প্রতিষ্ঠান বা আয়োজকদের নাম হবে ) উপলক্ষে আয়োজিত আজকের এই ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানের উপস্থিত মান্যবর সভাপতি ৷ মঞ্চে উপবিষ্ট অতিথি বৃন্দ ৷ আমার সামনে উপস্থিত খেলা প্রেমী ভাই-বন্ধু এবং এক ঝাঁক শিক্ষার্থীবৃন্দ ৷
আপনাদের সবাইকে জানাই লাল গোলাপের শুভেচ্ছা এবং অভিনন্দন ।

বিশেষ ধন্যবাদ জানাই প্রিয় সঞ্চালক সাহেবকে । যার সুন্দর সঞ্চালনায় প্রাণবন্ত হয়ে উঠেছে আজকের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠান ।

 

অনুষ্ঠানে বক্তব্যের শুরু:

 

প্রিয় সুধী । খেলাধুলার পক্ষে এবং বিপক্ষে অনেক যুক্তি ও বিতর্ক আছে । আছে ইসলামের গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনা । প্রথমে আমি খেলাধুলার পক্ষ নিয়ে কিছু কথা আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করছি । মনোযোগ সহকারে শুনুন। পৃথিবীতে খেলাধুলার ইতিহাস বেশ পুরনো । প্রাচীন কাল থেকে শিশু-কিশোর রা বিভিন্ন রকম খেলায় অভ্যস্ত ছিল । ছোটদের বাইরে বড়দের মধ্যেও খেলাধুলার প্রবল ঝোক ছিল । তাদের ঐসব জনপ্রিয় খেলার মধ্যে অন্যতম ছিল- কুস্তি , দৌড়, ঝাঁপ, মল্লযুদ্ধ , চাকতি নিক্ষেপ, বর্ষা-তীর ছোড়া ,মুষ্টিযুদ্ধ, হা- ডু-ডু ইত্যাদি ।

 

কালের পরিবর্তনে খেলার ধরন চেঞ্জ হয়েছে । স্মার্টফোনে এসেছে বিভিন্ন খেলার অ্যাপস । বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে টেবিল টেনিস, ব্যায়াম,দাবা ,বাস্কেটবল ইত্যাদি খেলার প্রতি আকর্ষণ বেড়েছে । তারপরও মাঠে-ময়দানে দাপিয়ে রিয়েল খেলার মজাই আলাদা । এ কথা সবাই বিশ্বাস করে বিশ্বাস করেন আপনারা ও । এই বিশ্বাসের জোড়েই আজ আপনার এখানে হাজির হয়েছেন । আপনাদের যদি এখন গণভোট নেওয়া হত তাহলে সকলে বলতেন, সবার প্রিয় খেলা ফুটবল এবং ক্রিকেট । কি বলেন ! ঠিক কিনা ?

আপনারা ঠিক বললেও ঠিক ,আপনারা না বললেও ঠিক । কেননা সরকারিভাবে অন্য খেলাধুলার পাশাপাশি ফুটবল ও ক্রিকেটের খেলার পিছনে কোটি কোটি টাকা খরচ করা হচ্ছে । জাতীয় টিভি চ্যানেল গুলো বরাবরের মতো লাইভ সম্প্রচার করছে । দৈনিক পত্রিকাগুলো দৈনিক খেলাধুলার নিউজ প্রকাশ করছে । ক্রিকেট ও ফুটবল জনপ্রিয় না হলে কি আর এসব করা হয় ?

ইসলামে খেলাধুলার গুরুত্ব

 

পরিপূর্ণ জীবন বিধান দিয়েছে একমাত্র ইসলাম। এই ইসলামে সত্য ও ন্যায়ের পথে জীবন যাপনের পাশাপাশি বিনোদন ও সংস্কৃতি চর্চার প্রতিও উৎসাহ দিয়েছে । বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম হলো খেলাধুলা । সুস্থ শরীর ও সুন্দর মন পরস্পর পরিপূরক তাই ইসলাম এ বিষয়টির প্রতিও যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়েছে ।

খেলাধুলার গুরুত্ব

ইসলাম নিথর- নির্জীব জীবন বোধের বদলে ইবাদতের মাধ্যমে শরীর স্বাস্থ্যের বিকাশকে উৎসাহিত করে ।
বিনোদন এবং খেলাধুলার বিষয়াবলীকে ইসলাম খুব গুরুত্বের সঙ্গে মূল্যায়ন করেছে । খেলাধুলা যখন দেখায় এবং বিনোদন যখন বিনোদনের ক্ষেত্রে শরীয়তের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে তখন ইসলাম এমন বিনোদন বা খেলাধুলা কে বাধা দেয় না ।

 

হাদীসের আলোকে খেলাধুলা

 

প্রিয় উপস্থিত শ্রোতাগণ ।‌ আপনার এতক্ষণ খেলাধুলা সম্পর্কে সংক্ষেপে অনেক কথাই শুনলেন । এবার আমি আপনাদের সম্মুখে নবীজীর কয়েকটি হাদীস উল্লেখ করবো ।

খেলাধুলা নিয়ে  হাদীস

 

নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন ঘোড়া অথবা তীর নিক্ষেপ কিংবা উটের প্রতিযোগিতার ব্যতীত ইসলামে অন্য প্রতিযোগিতা নেই । ( জামে তিরমিজি, হাদীস নং ৫৬৪)

২ নং হাদীস

নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম আরও বলেছেন ।
যে ব্যক্তি তীর চালনা শেখার পর তা ছেড়ে দেয় সে আমার দলভুক্ত নয় । (সহীহ মুসলিম: ৭৬৬৮)

নং হাদীস

নবী আকরাম সাল্লাল্লাহু ওয়া সাল্লাম বলেছেন তোমাদের জন্য কি নিক্ষেপ শিক্ষা করা কর্তব্য কেননা এটা তোমাদের জন্য উত্তম একটি খেলা । (ফিকহুস সুন্নাহ, ২য় খণ্ড পৃষ্ঠা নং ৬০)

৪ নং হাদীস

হযরত ইবনে উমর রাদিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত ‌। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন ,হাফইয়া থেকে সানিয়াতুল বিদা পর্যন্ত সীমানার মধ্যে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ঘোড়াসমূহের দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠান করেছেন । স্থান দুইটির মাঝে দূরত্ব ছিল ৬ মাইল । (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ৩৬৫৭)

ইসলামে খেলাধুলার শর্ত

 

ইসলামে দুই ধরণের খেলাধুলাকে বৈধ রেখেছে দুটি শর্ত সাপেক্ষে।
১-শারিরীক উপকার নিহিত ।যেমন দৌড়, ফুটবল ও ক্রিকেট ইত্যাদি ।
২-দ্বীনের শত্রুর বিরুদ্ধে প্রশিক্ষণমূলক খেলা। যেমন তীরন্দাজী, ঘোড় দৌড় ইত্যাদি।

এসব খেলা জায়েজ থাকার জন্য শর্ত দু’টি। যথা-
১- ফরজ ও ওয়াজিব কোন ইবাদতে বিঘ্ন না হতে হবে।
২-এর সাথে আর কোন গোনাহের বিষয় মিলিত না হতে হবে।

অধিক খেলাধুলার অপকারিতা:

 

খেলাধুলার করা যেমন উপকার আছে ঠিক তদ্রুপ এর কিছু খারাপ দিক ও আছে । মাত্রাতিরিক্ত খেলাধুলা মানুষের স্বাস্থ্যের হুমকি স্বরূপ। অধিক খেলাধুলা ছাত্র ছাত্রীদের লেখাপড়ার বারোটা বাজিয়ে দেয় । সোনালী জীবন ধ্বংস করে । তাই এ বিষয়ে নিজেকে এবং সকল অভিভাবক বৃন্দকে সতর্ক হতে হবে ।

এবার বক্তব্য শেষ করুন :

 

প্রিয় সুধী মন্ডলী । বক্তৃতা করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতা নেই । তবুও যেহেতু সঞ্চালক সাহেব নাম বলেছিলেন তাই একটুখানি বলার চেষ্টা করেছি । ভুল কিছু বলে থাকলে বিজ্ঞজনেরা ক্ষমার সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন ।

 

আমি আমার বক্তব্য শেষে বলতে চাই রুটিন মাফিক খেলাধুলা হোক । ইসলামী শরীয়তের মধ্য থেকে হোক এবং প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হতে প্রচুর মেহনত করা হোক । কেননা কথাই তো আছে পরিশ্রম সৌভাগ্যের প্রসৃতি । আজকে যারা বিজয়ী হয়েছেন তারা এরকম নিয়মিত হওয়ার চেষ্টা অভ্যতা রাখবেন । আর যারা বিজয় হতে পারেননি আগামীতে বিজয়ের পতাকা অর্জনের চেষ্টা করবেন ।

নিয়ম বহির্ভূত খেলাধুলা বন্ধ করা হোক । বন্ধ করা হোক স্মার্টফোনের গেমসগুলো । উন্মুক্ত করা হোক শিশু কিশোরদের জন্য খেলার মাঠ । এগিয়ে যাক ওরাও । এগিয়ে যাবে দেশ ইনশাল্লাহ।

শেষকথাঃ

আজ আর নয়, খেলাধুলা নিয়ে বক্তব্য  শিরোনামের আজকের লেখা এখানেই শেষ করছি। আগামীতে আবারো দেখা হবে খেলাধূলা রিলেটেড ভিন্ন কোন টপিকে। ততক্ষণ পর্যন্ত ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন Sportshoure.com এর সাথেই থাকুন ধন্যবাদ

 

লিখেছেনঃ শরীফ আহমাদ

One Comment on “খেলাধুলা নিয়ে বক্তব্য। খেলাধুলার ইতিহাস”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *